মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছি। ভবিষ্যতে এ ধারা অব্যাহত রাখতে চায়। কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান


বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির প্রতিষ্ঠার যুগপূর্তি পালন উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, একটি রাজনৈতিক দল গঠনের উদ্দেশ্য হওয়া উচিত রাষ্ট্র ও জনগণের কল্যাণ। কল্যাণ পার্টি প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সে প্রচেষ্টাই চালিয়ে যাচ্ছে। এ জন্য তাদেরকে কঠিন ও দুর্গম পথ পাড়ি দিতে হয়েছে। আশা করি তাদের আগামীর পথচলা হবে শান্তিময়। বর্তমান কঠিন সময় পার করে জাতিকে তারা একটি কল্যাণকর রাষ্ট্র উপহার দিতে ভূমিকা রাখবে।
১২ বছর আগে ১/১১ এর উদ্ভূত পরিস্থিতির মধ্যে ‘বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি’ নামে নতুন একটি রাজনৈতিক দল গঠিত হয়। দিনটি উপলক্ষে গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিশেষ ফুলেল শুভেচ্ছা অনুষ্ঠান আয়োজন করে দলটি। কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব:) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার, এলডিপির মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক মুভমেন্টের চেয়ারম্যান ববি হাজ্জাজ, জাগপার ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আসাদুর রহমান খান প্রমুখ। আরো উপস্থিত ছিলেন, জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মাওলানা আব্দুল হালিম, জাগপার সহসভাপতি রাশেদ প্রধান, কল্যাণ পার্টির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবব নুরুল কবির ভুইয়া পিন্টু, স্থায়ী কমিটির সদস্য ফোরকান ইবরাহিম, আজাদ মাহবুব, ভাইস চেয়ারম্যান লে. কর্নেল (অবঃ) নুরুদ্দিন, সাহিদুর রহমান তামান্না, আলী হোসেন ফরায়েজী, মাহমুদ খান, এলডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল, বাংলাদেশ কংগেসের মহাসিচ এ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম, কল্যাল পার্টির যুগ্ম মহাসিচব (দপ্তর) আল আমিন ভুইয়া রিপন প্রমুখ।
সৈয়দ মোহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক বলেন, কল্যাণ পার্টি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। ভবিষ্যতে এ ধারা অব্যাহত রাখতে চায়। এ জন্য যে লড়াই সংগ্রামের প্রয়োজন রয়েছে তা আমরা করতে প্রস্তুত আছি। বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও ইসলামী মূল্যবোধের উপর ভিত্তি করে আমরা জাতিকে একটি কল্যাণকর রাষ্ট্র উপহার দিতে চাই। এ জন্য সবার সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।
গোলাম পরওয়ার বলেন, আমাদের রাজনীতির সংগ্রামমুখর চলার পথে জেনারেল ইবরাহিম অগ্রনায়ক, অগ্রসেনানী। জেনারেল ইবরাহিমের নেতৃত্বে কল্যাণ পার্টির যে সংগ্রাম, জাতীয় রাজনীতিতে যে অবদান, তা এ দেশের রাজনীতিকে অনেক দূর এগিয়ে নেবে বলে আমাদের বিশ্বাস। তিনি বলেন, আমি মনে করি, একটি রাজনৈতিক দল গঠনের উদ্দেশ্য হওয়া উচিত রাষ্ট্র ও জনগণের কল্যাণে। সৈয়দ ইবরাহিমের দলের বিকশিত নীতির মধ্যে তিনি সেটাই উল্লেখ করেছেন। কল্যাণ পার্টি যে সময়টা পার করেছে, সেটা একটা সংগ্রামমুখর যুগ। অনেক কষ্ট, বাধা-বিপত্তি পাড়ি দিয়ে কল্যাণ পার্টিকে এগোতে হচ্ছে।
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, অসৎ পথে বিরিয়ানি খাওয়ার থেকে সৎ পথে কামাই করে নুন-ভাত খাওয়াও ভালো- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্যকে পেঁয়াজ প্রসঙ্গ এড়িয়ে যাওয়ার কৌশল। পেঁয়াজের জন্য মানুষ হাহাকার করছে, আর প্রধানমন্ত্রী স্পেনে বসে বলছেন- সৎপথে নুন-ভাত ভালো। নুন-ভাততো কখনো আমরা শুনি নাই। আমরা তো জানি সৎপথে পানি-ভাতই ভালো। বাংলাদেশের মানুষ তো পানি-ভাত, পান্তাভাতের সাথে পরিচিত। অথচ প্রধানমন্ত্রী পানি-ভাত না বলে নুন-ভাত খেতে বললেন। কারণ পানি-ভাত বললে তো এর সাথে পরোক্ষভাবে পেঁয়াজের প্রসঙ্গ চলে আসবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *