বাংলাদেশে ন্যায়পাল নিয়োগ জরুরি

মানবাধিকার লংঘন, প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি আর সরকারের বিভিন্ন স্তরে জবাবদিহিতা না থাকায় দিন দিনই বিব্রতকর অবস্থায় পড়ছে সরকার৷ এই পরিস্থিতিতে সাংবিধানিক ন্যায়পাল নিয়োগ জরুরি বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা৷

রাজপথে আইন শৃংখলাবাহিনীর বেপরোয়া আচরণে বিব্রত সরকার

তাঁরা বলছেন, একজন ন্যায়পাল থাকলে সরকারকে মুখোমুখি হতে হবে না অনেক বিব্রতকর পরিস্থিতির৷

নিরাপত্তা হেফাজতে মৃত্যু, রাজপথে আইন শৃংখলাবাহিনীর বেপরোয়া আচরণ, সরকারি প্রতিষ্ঠানে দুর্নীতির প্রতিকার না পাওয়ার মত বিষয়গুলো দিন দিনই সাধারণ মানুষকে করে তুলছে উদ্বিগ্ন৷ অনেক ক্ষেত্রেই জবাবদিহিতার বাইরে চলে যাচ্ছে এসব ঘটনা৷ এসবের প্রতিকার পেতে একজন সাংবিধানিক ন্যায়পাল অবশ্য দরকার বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷ এ্যাডভোকেট আনিসুল হক মনে করেন, সংবিধানের ৭৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ন্যায়পাল নিয়োগ দেয়া যায়৷ এবং নিয়োগের পরিস্থিতি এখনো বিদ্যমান৷

সংবিধানে সুনির্দিষ্ট বাধ্যবাধকতা থাকলেও স্বাধীনতার পর থেকে কোন সরকারই আমলে নেয়নি ন্যায়পাল নিয়োগের কথা৷ সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. এম জহির মনে করেন, ন্যায়পাল সরকারের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করবে৷ সরকারি প্রতিষ্ঠানকে আনবে জবাবদিহিতার মধ্যে৷

মানবাধিকার লংঘন এবং প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতির কারণে সরকারের প্রতি আস্থা হারায় সাধারণ মানুষ- এমন দাবি করে বিশেষজ্ঞরা বললেন, রাষ্ট্রীয় কাঠামোর প্রতি এই আস্থাহীনতাই জন্ম দেয় সামাজিক অনাচার ও রাজনৈতিক সহিংসতার৷ বর্তমান সরকার তার নির্বাচনী ইশতেহারে ন্যায়পাল নিয়োগের কথা বলেছে৷ তাই তাদের উচিত অচিরেই ন্যায়পাল নিয়োগ দেয়া৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন, ঢাকা,  সম্পাদনা: জাহিদুল হক

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *